Doric Order Characteristics
July 14, 2021
সেলাই মেশিনের মধ্যে সাধারণ সেলাই মেশিন হলো সিঙ্গেল নিডেল লক স্টিচ সেলাই মেশিন। এই মেশিনকে প্লেইন সেলাই মেশিন ও বলা হয়। সিঙ্গেল নিডেল লক স্টিচ মেশিনটি গার্মেন্টসে সবথেকে বেশি ব্যবহৃত হয়।
    সিঙ্গেল নিডেল লকস্টিচ মেশিন অপারেশন
July 18, 2021
“হিস্ট্রি-অফ-মডার্ন-আর্কিটেকচার-অফ-বাংলাদেশ”-(পার্ট--০২-কমলাপুর-রেলওয়ে-স্টেশন)

“হিস্ট্রি-অফ-মডার্ন-আর্কিটেকচার-অফ-বাংলাদেশ”-(পার্ট--০২-কমলাপুর-রেলওয়ে-স্টেশন)

Spread the love

“হিস্ট্রি অফ মডার্ন আর্কিটেকচার অফ বাংলাদেশ”(পার্ট -০২ঃ কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন )

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন বা ঢাকা রেলওয়ে স্টেশন  হচ্ছে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় রেলওয়ে স্টেশন। এটি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার মতিঝিলে অবস্থিত। এটি বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ ও সর্বাধুনিক রেলওয়ে স্টেশন।

“হিস্ট্রি অফ মডার্ন আর্কিটেকচার অফ বাংলাদেশ”(পার্ট -০২ঃ কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন )

 

আজকে আমরা জানব বাংলাদেশের আধুনিক স্থাপত্য কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্যঃ

 

বিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে ঢাকার শহুরে অবস্থা বৃদ্ধি পায়, এবং এর অর্থনীতিও বৃদ্ধি পায়, বিশেষ করে ১৯৪৭ সালের পর, যখন এটি পূর্ব পাকিস্তানের প্রাদেশিক রাজধানী হয়। বিদ্যমান রেলপথগুলো উত্তরের দিকে প্রসারিত হয়ে ঢাকাকে পুরনো ও নতুন শহরে দ্বিখণ্ডিত করে, এবং এই রেলপথগুলো বিভিন্ন স্থানে সড়কের সাথে মিলিত হওয়ায় উত্তর-দক্ষিণের সড়ক যানবাহনের প্রবাহ বাধাপ্রাপ্ত হয়। এছাড়াও ঢাকার উত্তর দিকে অবস্থিত ফুলবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনটি ছিল অপূর্ণাঙ্গ, যাতে একটি প্ল্যাটফর্ম, একটি ছোট প্রাঙ্গণ ও একটি লোকোমোটিভ শেড ছিল। ধারণা করা হয়, স্টেশনটিকে তুলনামূলক কম ঘনবসতিপূর্ণ স্থানে স্থানান্তর করলে তেমন কোনো বাঁধা ছাড়াই উত্তর-দক্ষিণের যানবাহনের প্রবাহ সহজ হবে, এবং পুরনো ও নতুন ঢাকা শহরও একত্রিত হবে। ১৯৪৮ সালে বিশেষজ্ঞরা স্টেশনটিকে কমলাপুরে স্থানান্তরের পরামর্শ দেন। ১০ বছর পর ১৯৫৮ সালে প্রাদেশিক সরকার পরিকল্পনাটি কার্যকর করার দায়িত্ব অর্পণ করে। তেজগাঁও থেকে রেলপথের গতিমুখ পরিবর্তন করে খিলগাঁও, এবং এরপর কমলাপুর পর্যন্ত নেওয়া হয়। ১৯৬৮ সালের ২৭শে এপ্রিল স্টেশনটি উদ্বোধন করা হয়।

“হিস্ট্রি অফ মডার্ন আর্কিটেকচার অফ বাংলাদেশ”(পার্ট -০২ঃ কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন )

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের স্থপতি ছিলেন দুজন মার্কিন: ড্যানিয়েল বার্নহ্যাম এবং বব বুই। দুজনেই লুই বার্জার অ্যান্ড কনসালটিং ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেডের স্থপতি হিসেবে পূর্ব পাকিস্তানে এসেছিলেন।

বার্নহ্যাম ও বুইয়ের ডিজাইন চ্যালেঞ্জ ছিল একটি চওড়া-স্প্যানের কাঠামো তৈরি করা, যা গ্রীষ্মমণ্ডলীয়

আবহাওয়ার উপযোগী হবে।

 

স্থাপত্যিক বৈশিষ্ট্য

 

  • স্টেশনটি ১৫৬ একর জায়গার উপর গঠিত। এতে ১০টি প্ল্যাটফর্ম। এছাড়াও এতে রয়েছে ১১টি টিকেট কাউন্টার এবং বহু যাত্রী বিশ্রামকেন্দ্র।

 

  • পুরো স্থাপনাটি ৩৬টি বর্গক্ষেত্রের সমন্বয়ে গঠিত। এতে মোট ৪৯টি কলাম রয়েছে। এর ওপর দাঁড়িয়ে আছে ৩৬টি সরু কংক্রিটের ডোম নিয়ে একটি ছাদ।

 

  • ৫৯ ফুট উঁচু প্রতিটি কলাম ওপরের দিকে গিয়ে চারটি শাখা বিস্তার করে ছাদটাকে ধরে রেখেছে।

 

  • ট্রেন টার্মিনালের ছাদের কংক্রিটের অসচরাচর কাঠামো, যার সাথে রয়েছে একটি প্যারাসল ছাদ যা নিম্নমুখী আন্তঃসংযুক্ত কাঠামোসমূহের সারিকে আশ্রয় দেয়।

 

  • টার্মিনালটির প্রোফাইল–মৃদুভাবে সূক্ষ্মাগ্র ও খিলান করা খোলসসমূহের এক ছন্দময় বিন্যাস গ্রীষ্মমণ্ডলীয় আবহাওয়ার সাধারণ চিত্রের উদ্দীপনা দেয়, যেখানে একটি ছাতা বর্ষার বৃষ্টি হতে সুরক্ষা প্রদান করেl

 

  • স্টেশনটির নকশায় একটি একত্রিত ছাউনি ছাদের নিচে স্টেশনের টিকেট বুথ, প্রশাসনিক অফিস, যাত্রী বিশ্রামকেন্দ্র ও ওয়েটিং এরিয়াসহ বিভিন্ন কার্যকরী স্থান রয়েছেl

 

 

২০১৮ সালে সরকারি–বেসরকারি যৌথ বিনিয়োগে (পিপিপি) ঢাকা বিমানবন্দর ও তেজগাঁও রেলওয়ে স্টেশনসহ কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ঘিরে মাল্টিমোডাল হাব করার প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। এর অধীন কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের চারপাশে অবকাঠামো নির্মাণ করা হবে; থাকবে বহুতল আবাসন ভবন, হোটেল, শপিং মল, পাতাল ও উড়ালপথ।

২০২০ সালে বাংলাদেশ রেলওয়ে এবং ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ঢাকা মেট্রো রেলের এমআরটি লাইন ৬ এর সঙ্গে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের যোগাযোগ ঘটাতে হবে। কিন্তু বর্তমান স্টেশনটি এম আরটি লাইন ৬ এর প্রস্তাবিত পথের সঙ্গে মিলতে না পারায় কমলাপুর স্টেশনটি ভেঙে ১৩০ মিটার উত্তরে নতুন জায়গায় তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

 

 

লেখক

লিমা আক্তার

জুনিয়র ইনস্ট্রাক্টর

আর্কিটেকচার এন্ড ইন্টেরিয়র ডিজাইন টেকনোলজি

ড্যাফোডিল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

 

 

 

Comments are closed.