Anushilon -1024x576

অনুশীলনে সবই সম্ভব

মানুষ হিসাবে আমরা সব সময় নিজ নিজ ক্ষেত্রে দক্ষ হয়ে থাকতে পছন্দ করি। ভিন্ন ভিন্ন দক্ষতা আমার ক্যারিয়ারের সাথে যুক্ত হবে এটাই আমার সব সময়ের কাম্য। কিন্তু বাস্তবতা হলো নতুন কিছু শেখা বড়ই কঠিন, বিশেষত শুরুতে যখন আমরা শিখতে আরম্ভ করি এবং বার বার ভুল করি, তখন অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমরা ভুলের কথা মনে করে মাঝ পথে ছেড়ে চলে আসি। কিন্তু বাস্তবতা হলো, নতুন কিছু শেখার একমাত্র উপায় হলো নিরলশ অনুশীলন, বার বার ভুল করা এবং প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকা যে একই ভুল পুনরাবৃত্তি না করা।

কানাডিয়ান সাংবাদিক, লেখক ম্যালকম গ্ল্যাডওয়েল তার বিখ্যাত বই আউটলিয়ারস এ বলেছেন ”কোন একটি ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ হতে প্রয়োজন দশ হাজার (১০,০০০) ঘন্টার অনুশীলন”। আরও একধাপ বাস্তববাদী হয়ে লেখক জোশ কাউফম্যান তার বই  দ্য পার্সোনাল এমবিএ-তে উল্লেখ করেছেন “কিছুই পারি না থেকে মোটামুটি পারি” পর্যন্তু আসতে প্রয়োজন প্রায় ২০ ঘন্টার অনুশীলন – যা প্রতিদিন ৪৫ মিনিট করে এক মাসের নিয়মিত অনুশীলন।

সুতরাং কোন একটি বিষয়ে আমি “মোটামুটি ভালো” বা “বিশেষজ্ঞ” যেটাই হতে চাই না কেন তার জন্য আমার প্রয়োজন হবে অনুশীলনের। বিভিন্ন গবেষনা বলছে অনুশীলন তাদের জন্যও অত্যন্ত কঠিন এবং প্ররিশ্রমের যারা ইতিমধ্যে কোন একটি বিষয়ে উচ্চ দক্ষতা অর্জন করেছেন এবং নতুন আরেকটি বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে চাচ্ছেন। আর একারনেই সম্ভবত অভিজ্ঞদের মধ্যে অনেকেরই নতুন কোন দক্ষতা অর্জনে কিছুটা অনিহা কাজ করে। তারা মনে করেন কোন বিষয়ে সক্ষমতা অর্জনের জন্য পড়া এবং আলোচনাই যথেষ্ট। আমাদের শিক্ষা পদ্ধতির দিকে তাকালেই আমরা এর ছাপ খুব ভালোভাবেই দেখতে পাই। ছাত্রছাত্রীদের ডিগ্রী প্রদান করা হচ্ছে কে কত ভালোভাবে মুখস্ত করেছে তার উপর ভিত্তি করে। কিন্তু বর্তমান সময়ে এটা সবাই একবাক্যে স্বীকার করছেন যে পড়া এবং আলোচনার পাশাপাশি হাতেকলমে শেখা এবং সেটা বার বার অনুশীলন না করলে দক্ষতা কখনই সম্ভব নয়। তাই দক্ষতা বিকাশ অতীব গুরুত্বপূর্ণ।

YouTube player

এই বিষয়ে আলোচনা করতে গেলেই মনে পড়ে আমার সাইকেল চালানো শেখার কথা। মাত্র তিন বছর আগে সাইকেল চালানো শিখেছি। ছোটবেলা থেকেই শখ ছিল সাইকেল চালানোর। সেজন্য সাইকেল বিষয়ে অনেক পড়েছি, কি কি ধরনের সাইকেল আছে, সাইকেলের ওয়ার্ল্ড রেসিং, সাইকেলের বিভিন্ন পার্টস এমনকি বন্ধুদের আড্ডায় সাইকেল বিষয়ে কতো আলোচনা শুনেছি কিন্তু কোনদিন সাইকেলের উপর উঠে চালানোর সাহস করিনি। তিনবছর আগে আমার এক বন্ধুকে বলার পর ও বললো কোন ব্যাপার না মাত্র দুই ঘন্টায় তুই সাইকেল চালাবি। পরবর্তী দিন আমার বন্ধু তার সাইকেল নিয়ে আসলো এবং শুরু হলো প্রশিক্ষন। ১০ বছর বয়সে যেটা করার কথা সেটা করলাম অনেক বছর পর এসে। যেহেতু সাইকেল নিয়ে আমার আগেই ধারনা ছিল এবং আমার বন্ধুর সুদক্ষ প্রশিক্ষনের মাধ্যমে সত্যি সত্যিই আমি চার ঘন্টার মাথায় সম্পূর্ন একা সাইকেল চালালাম। তারপর সাতদিন আর সাইকেল বের করিনি ভয়ে। হঠাৎ একদিন মনে হলো আজ একাই সাইকেল বের করে চালাবো। প্রচন্ড ভয় নিয়ে বের করলাম এবং আস্তে আস্তে চালালাম। ৩০ দিনের ব্যবধানে একদম পাকা সাইকেল চালক হয়ে গেলাম এবং অনায়াসে দ্রুতগতিতে চলতে থাকা রিকশার সাথে নিজে নিজে প্রতিযোগিতা করে জিতেও গেলাম। আহ! কি সুখ!

সাধারণত জন্মগতভাবেই আমাদের একটি গুন আছে যে কোন একটি বিষয় মন দিয়ে পড়লে এবং বন্ধুদের সাথে আলাপ করলেই সে বিষয়ের একটি স্পষ্ট ধারণা আমরা দ্রুত উপলব্ধি করতে পারি। কিন্তু ভুল হয় তখন, যখন আমরা মনে করি যে হয়তো আমি এখন বাস্তবে সেটা প্রয়োগ করতে পারবো এবং সেটা করতে গিয়েই আমাদের ভুল ভেঙে যায়। আসলে জ্ঞান এবং দক্ষতা কখনই এক জিনিস নয়। বাস্তবতা হ’ল কোন বিষয়ের উপর জ্ঞান অর্জনের পর হাতে-কলমে করে সেটা বার বার অনুশীলন করতে হবে, তারপর সেই দক্ষতা প্রয়োগ করার মাধ্যমে বন্ধু বা অভিজ্ঞ কারো কাছ থেকে মতামত খোলা মনে গ্রহন করতে হবে।  অভিজ্ঞদের মতামত অনুসারে তা পরিমার্জন বা পরিবর্ধন করে আবার নিরলশ অনুশীলন করতে হবে যা ২০ থেকে ১০,০০০ ঘন্টা পর্যন্ত হতে পারে।

YouTube player

আমি আবারও স্বীকার করছি এটি করা কঠিন তবে অসম্ভব নয়। শুধু দরকার উন্নত মানসিকতা। কেননা একমাত্র উন্নত মানসিকতাই আমাদেরকে ‘না’ কে ‘হ্যা তে রুপান্তর করতে শেখায়। নতুন কিছু শেখার অর্থ হলো প্রাথমিকভাবে নিজেকে একদম আনাড়ি ভাবা, প্রয়োগের মাধ্যমে ভুল করা, মতামত নিয়ে সংশোধন করা এবং বার বার চেষ্টা করা। নিঃসন্দেহে এতগুলো ধাপ অনুসরণ করা অস্বস্তিকর। যদিও আমরা জানি, যেই দক্ষতাকে আমি আমার ক্যারিয়ারের সাথে যুক্ত করতে চাচ্ছি সেটা অত্যন্ত মূল্যবান, তবুও ২০ থেকে ১০,০০০ ঘন্টার কথা মনে হলেই চেষ্টা করা বন্ধ করে দেই এবং পুরানো অভ্যাসে ফিরে আসি। অনুশীলনের গুরুত্ব আমরা সবাই জানি কিন্তু প্রশ্ন হলো কীভাবে আমরা এটিকে সম্ভব করতে পারি? এই বিষয়ে বিষেজ্ঞরা কিছু পরামর্শ দিয়েছেন তা নীচে তুলে ধরলামঃ

  • নিজেকে প্রতিনিয়ত চ্যালেঞ্জ করতে হবেঃ নতুন কিছু শেখা এবং দক্ষতা অর্জন করা মানেই হলো অনেক পরিশ্রম করা, এটিকে মেনে নিয়েই এগিয়ে যেতে হবে এবং শেখাটা যে কঠিন হবে সে বিষয়ে নিজের কাছে সৎ থাকতে হবে বিশেষ করে যখন আমি নেতৃত্বের ভূমিকায় থাকি।
  • নিজের সীমাবদ্ধ অনুধাবন করতে হবেঃ আমরা চাইলেই সবকিছুতে একেবারে দক্ষ হতে পারবো না। এটাই বাস্তবতা। তাই যে বিষয়ে আমি দক্ষ হতে চাচ্ছি সে বিষয়ে নিজেকে বার বার অনুশীলনের মাধ্যমে দক্ষ করে তুলতে হবে। যখন বুঝবো যে আমি ভালোভাবেই দক্ষতা অর্জন করেছি তখন নতুন আরেকটি বিষয় নিয়ে অনুশীলন শুরু করবো।
  • সময়ের প্রতি যত্নবান হতে হবেঃ অনুশীলনের জন্য প্রতিদিন প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকতে হবে। অনেকে ক্যালেন্ডারে  সময় ব্লক করে রাখেন বা আরো অনেক পদ্ধতি অবলম্বন করেন যার অর্থ হলো নিজের এবং সময়ের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকা। মনে করতে হবে এটি একটি প্রজেক্ট এবং আমি তার প্রধান হিসেবে কাজ করছি।
  • সাথে কাউকে পেলে মন্দ হয় নাঃ অনুশীলনের জন্য একে অপরকে দায়বদ্ধ রাখতে সহপাঠিদের বা সহকর্মীদের সাথে কাজ করলে দ্রুত ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।

সবশেষে বলতে ইচ্ছে করছে আমার সেই প্রিয় ট্যাগলাইন অনুশীলনে_সবই_সম্ভব। মাত্র তিনটি শব্দ কিন্তু মন থেকে অনুধাবন করার চেষ্টা করলে দেখবো এর গভীরতা বিশাল। আসলে এটি বিশ্বাস করার ব্যাপার। আর কথায় আছে বিশ্বাসে মিলায় বস্তু তর্কে বহুদুর। আসুন আজ থেকেই আমরা আবার বিশ্বাস করি কঠিন বা অস্বস্তিকর হলেও এটা সত্যি ”অনুশীলনে_সবই_সম্ভব। শেষ করতে চাই একটি প্রশ্নের মাধ্যমে আপনি এখন কোন নতুন দক্ষতা অনুশীলন করার কথা ভাবছেন?

উত্তরটি কমেন্টে লিখে পাঠিয়ে দিন। আর যদি আপনার এই দক্ষতা অর্জনে আমি বা আমাদের প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইন্সটিটিউট কোন কাজে আসতে পারি  তাহলে নিশ্চিন্তে আমাদের লিখে বা ফোন করে জানাতে পারেন নীচের দেয়া তথ্যে: [email protected],org বা +৮৮ ০১৭১৩ ৪৯৩ ২০৬

লেখক:

কে এম হাসান রিপন, নির্বাহী পরিচালক, বাংলাদেশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইন্সটিটিউট

Tags: No tags

Comments are closed.