সফল উদ্যোক্তা হওয়ার সহজ উপায়।
January 15, 2020
ড্যাফোডিল পলিটেকনিক ইন্টার্নশিপ ফেস্ট ২০২০
January 20, 2020
Spread the love

যদি আপনি একজন শিক্ষক হয়ে থাকেন এবং শিক্ষকতা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করে থাকেন তবে আপনাকে অবশ্যই কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে, কিছু অভ্যাস আয়ত্ত করার পাশাপাশি তা অনুশীলন করতে হবে নিয়মিত।

শিক্ষকতা উপভোগ করা: আপনি তখনি পড়ানো কে উপভোগ করতে পারবেন যদি আপনি মন থেকে ক্লাসের বাচ্চাদের ভাল বাসেন, তাদের উন্নতির কথা ভাবেন। আপনি নিজে পড়ানো মজার না বানাতে পারলে এটা প্রত্যাশা করতে পারেন না যে আপনার ক্লাসে বাচ্চারা তা মজা নিয়া শিখবে। আপনি যদি ক্লাসের প্রতিটা মুহূর্ত আনন্দদায়ক ও ইন্টারেক্টিভ করতে পারেন তবেই শিক্ষকতা এবং শেখা উপভোগ্য দুটোই উপভোগ্য হবে।

পার্থক্য তৈরী করা: শিক্ষকতা মানে শুধু পড়ানো না, একটা অনেক বড় দায়িত্ব। শিক্ষকদের সবচেয়ে বড় কাজ হল ছাত্র-ছাত্রীদের জীবনে পরিবর্তন নিয়ে আসা এবং একটা পার্থক্য তৈরী করা। ছাত্র-ছাত্রীরা যেন আপনার ক্লাসে নিরাপদ, বিশেষ এবং নিজেকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করে। এই অনুভূতিটা আপনার ক্লাসে তৈরি করাটা খুব জরুরী যাতে আপনার একটা ইতিবাচক প্রভাব তাদের মধ্যে থাকে কারন আপনি জানেন না ক্লাসে ঢোকার পূর্বে কিংবা ক্লাস শেষে বাসায় ফেরার পর তারা কি ধরনের বাস্তবতা বা পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে সময় পার করে। সুতরাং তারা যদি পরিবার থেকে যথাযথ সাপোর্ট নাও পায় তবুও অন্ততপক্ষে আপনি তাদের জীবনে একটা পার্থক্য তৈরি করতে পারবেন।

 ইতিবাচকতা ছড়িয়ে দিন: ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে ক্লাসে ঢুকুন প্রতিদিন। আপনার সুন্দর হাসিটি ধরে রাখুন সারাদিন এবং ছড়িয়ে দিন ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে। ক্লাসে ঢোকার পূর্বে আপনার সমস্ত সমস্যা, ব্যক্তিগত প্রতিকূলতা-কষ্ট দরজার ওপাশে রেখে আপনার সর্বোচ্চটুকু নিয়ে হাজির হন ক্লাসে, বজায় রাখুন এই মুখোশটি এবং আপনার ছাত্র-ছাত্রীদের ভাবতে দিন আপনাকে একজন সুপার হিরো হিসেবে। সবসময় ইতিবাচক এবং পজেটিভ এনার্জি নিয়ে ক্লাসে থাকলে তা যেমন ছড়িয়ে পড়ে তেমনি নেতিবাচকটাও ছড়িয়ে পড়ে উল্টোভাবে। তাই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিন আপনি কী করবেন।

আপনার ছাত্র-ছাত্রীদের চিনুন: একজন সফল শিক্ষকের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হল তিনি তার ছাত্র-ছাত্রীদের সমন্ধে খুব ভাল করে জানেন এবং তাদের আগ্রহ, সবলতা-দুর্বলতা সম্পর্কে অবগত, এবং এই তথ্যগুলোর ভিত্তিতে তাদের প্রয়োজনীয় সাপোর্ট দেন। ক্লাসরুমের বাইরে আলাপচারিতায় শিক্ষার্থীকে সহজেই চেনা যায় বিভিন্নভাবে। আপনি আপনার ছাত্র-ছাত্রীদের যত ভালভাবে জানবেন, পড়ানোটা তত সহজ হবে।

 নিজের সর্বোচ্চটুকু ঢেলে দিন: শিক্ষক হিসেবে আপনি যখন নিজের সর্বোচ্চটুকু দিতে পারবেন তখনি আপনি আপনার ছাত্র-ছাত্রীদের থেকে তাদের সর্বোচ্চটা প্রচেষ্টা প্রত্যাশা করতে পারবেন। তাই নিজের সর্বোচ্চটুকু ঢেলে দিন।

 মুক্তমনা হোন: মুক্তমনা হওয়া এবং গঠনমূলক সমালোচনাকে পজিটিভভাবে নেওয়া একজন শিক্ষকের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ কারন আপনি প্রতিনিয়ত আপনার শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবক, সহকর্মী এবং প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে সমালোচিত হন। কেউ-ই নিখুঁত নয়। সুতরাং সমালোচনাগুলো নিজের উন্নতির জন্য টিপস হিসেবে ব্যবহার করুন।

একটি আদর্শ মানদণ্ড নির্ধারণ করুন: শিক্ষক হিসেবে কাজের একটি আদর্শ মানদণ্ড নির্ধারণ করুন এবং তা শিক্ষার্থীদের সাথে শেয়ার করুন যাতে তারা বুঝতে পারে আপনি তাদের কাছে কিরকম কাজ ও ফলাফল প্রতাশা করেন, এবং তারা তা পূরনে নিজেদের যথাসাধ্য চেষ্টা করে।

 গোছালো হন: কাজগুলো প্লান করে, গুছিয়ে করুন, ক্লাসের লেসন প্লান তৈরি করুন। আপনি যদি গুছিয়ে এবং প্লান অনুযায়ী ক্লাস নেন তাহলে নিজেকে এবং শিক্ষার্থীদের অবস্থান বুজতে পারবেন এবং সেই অনুযায়ী করণীয় ঠিক করতে পারবেন।

 নিজেকে প্রস্তুত করুন: পড়ানোর জন্য আপনাকে কোনকিছু শূন্য থেকে শুরু করতে হবে না। একজন দক্ষ ও ক্রিয়েটিভ শিক্ষক সবকিছু এবং সব আইডিয়া নিজে সৃষ্টি করেনা বরং বিভিন্ন জায়গা থেকে রিসোর্স সংগ্রহ করেন। তাই নিজেকে আপডেটেড ও সমৃদ্ধ করতে নিয়মিত বই, ইউটিউব, পিন্টারেস্ট, ফেসবুক, ব্লগ ইত্যাদি ব্যবহার করে প্রয়োজনীয় রিসোর্স সংগ্রহ করুন ও প্রস্তুতি নিন।

পরিবর্তনকে গ্রহন করুন: জীবনে সবকিছু পরিকল্পনা করে হয়না, পরিস্থিতির কারনে এবং প্রয়োজনে আমাদের কাজে পরিবর্তন আনতে হয়। আপনি যদি পরিব র্তনকে গ্রহন করেন এবং নতুন নতুন বিষয় ও কৌশল আয়ত্ত করেন তবেই আপনার দক্ষতা সময়ের সাথে বাড়বে।

নিজেকে সময় দিন এবং চিন্তার প্রতিফলন করুন: একজন দক্ষ শিক্ষক নিজের ক্লাসে যা ঘটে তা প্রতিনিয়ত চিন্তা করে এবং প্রতিফলনের মাধ্যমে বুঝতে পারে কিভাবে আরো ভাল করা যায়, ব্যর্থ্যতা থেকে বেরিয়ে আসা যায়। তাই দক্ষতা বাড়াতে নিজেকে সময় দিন প্রতিনিয়ত, ভাবুন কী ভাল ছিল, কী পরিবর্তন আনতে হবে। তাহলেই আপনি দক্ষ শিক্ষক হয়ে উঠবেন।

 

সংগৃহীত

Comments are closed.